রাজধানীতে ৬টি প্রতিষ্ঠান’কে ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা।

রাজধানীতে ৫ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন-৫) ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের যৌথ অভিযানে ৬টি প্রতিষ্ঠান’কে ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। বুধবার (২৮ই সেপ্টেম্বর ২০১৬) দুপুরে এপিবিএন-৫ এর সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ সাইদুর রহমান ও ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ফাহমিদা আক্তার ও মোঃ আব্দুল জব্বার মন্ডল এ অভিযান পরিচালনা করেন।

এপিবিএন-৫ এর অপারেশন্স অফিসার সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ সাইদুর রহমান জানান-মসজিদ মার্কেট, আসাদ গেট, মিরপুর রোড, মোহাম্মদপুর, ঢাকা’তে “মেডিসিন প্লাস” প্রতিষ্ঠান মেয়াদ উর্ত্তীণ ঔষধ বিক্রয় করায় ব্যবস্থাপক মোঃ মাইন উদ্দিন’কে ২০ হাজার টাকা জরিমানা, “লেড ফার্মা” একই অপরাধে ব্যবস্থাপক মোজাফফর হাসান’কে ২০ হাজার টাকা জরিমানা, “ভাগ্যকুল সুইটস্ এন্ড বেকারী” অপরিচ্ছন্ন পরিবেশ ও  মেয়াদ উর্ত্তীণ বিক্রয় করায় ব্যবস্থাপক জগদিশ চন্দ্র ষোঘ’কে ৫ হাজার টাকা জরিমানা, “মুসলিম সুইটমিট”  নোংরা পরিবেশ ও মিষ্টি’তে মশা-মাছি থাকায় মোঃ মারুফ হাসান’কে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, “মুসলিম বেকারী” খাবার প্যাকেটে লেভেল ব্যবহার না করায় আঃ করিম’কে ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং “অয়স্টোর রেষ্টুরেন্ট” ২৭, মনিপুরী পাড়া, তেজগাঁও, ঢাকা’কে ধার্য্যকৃত মূল্যের চাইতে অধিক মূল্যে খাদ্য বিক্রয় করায় আতিকুর রহমান’কে ৩০ হাজার টাকা করে মোট ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন ঢাকা বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ফাহমিদা আক্তার ও মোঃ আব্দুল জব্বার মন্ডল। “ঢাকা মহানগর এলাকায় এপিবিএন-৫ এর ভেজাল বিরোধী অভিযান নিয়মিতভাবে অব্যহত থাকবে”।

ঝিনাইদহ শি¶া অফিসার ও প্রধান শি¶করা মিল লুটপাট করছ প্রাথমিক শিপর ৪০ হাজার টাকা


ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ
সরকার সারা দশর প্রতিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ¯িøপ বাবাদ ৪০ হাজার টাকা ও প্রাক প্রাথমিকর জন্য ৫ হাজার টাকা দিয়ছ। যা প্রাথমিক বিদ্যালয়র ছাট্ট ছাট্ট বিভিন সমস্যা সমাধানর জন্য খরচ করত পারন।

কিÍু এই ৪৫ হাজার টাকার ব্যাপার ঝিনাইদহ সদর উপজলা অফিসার মাছুদ করিম ও সহকারী শি¶া অফিসার কামাল হাসনর বিরুদ্ধ ব্যাপক দুর্নীতির অভিযাগ উঠছ।

তথ্য জানাগছ, বিভিন ¯ুলর প্রধান শি¶কর সাথ কথা বল য ¯ুল প্রটি ৫৫০০ টাকা প্রথমই গাপন উপজলা সহকারী শি¶া অফিসার কামাল হাসনর নিকট দওয়া হয়। তারপর শি¶া অফিসার চক ¯^া¶র করন।

এই অভিযাগর ভিত্তিত কয়কটি শি¶া প্রতিষ্ঠান তথ্য সংগ্রহর জন্য গল, য তথ্য বরিয় আস তা হল, কান সাংবাদিক যদি এই টাকার ব্যাপার কান কাগজ পত্র দখত চায় তাহল বলবন-হিসাব পত্র না দখানার নির্দশ দওয়া হয়ছ।

শিপর টাকার প্রসঙ্গ ঝিনাইদহ সদর উপজলার পানামী প্রাথমিক বিদ্যালয়র প্রধান শি¶ক বিলকিছ আরা জানিয়ছ য, বাহিরর কান লাক এমন কি সাংবাদিক যদি হয় তাদর কান হিসাব পত্র দখাবন না। তাই তিনি ৪৫ হাজার টাকা কান কান বাবদ খরচ করছন তার তথ্য প্রদান করত অ¯^ীকার করন।

তিনি সাংবাদিক যাওয়ার পর মাবাইল গাপন উপজলা সহকারী শি¶া অফিসার কামাল হাসনর সাথ এসব কথা বলন। সাথ সাথ তিনি এও বলন ¯ুল সংক্রাÍ কান তথ্য জানত হল উপজলা শি¶া অফিস থক নওয়া যাব।

নাম প্রকাশ না করার শর্ত একজন শি¶ক জানান, সরকার শিপর ৪০ হাজার টাকা দিয়ছ তার থক উপজলা শি¶া কর্মকর্তার ৫ হাজার টাকা আগই দিত হয়ছ। তারপর ভ্যাট ইনকাম ট্যা· বাবদ ২ হাজার টাকা কট নিয়ছ। হিসাব দখানার সময় বশী বশী কর লিখ তা পুরন করত হব।

যদি এই ব্যাপার কাউক বলা হয় তাহল চাকুরীর কি অব¯া হব তা বলার অপ¶া রাখ না। চাকুরী ¶ত্র বদলী সহ বিভিন ঝুকির কারন কান শি¶ক মুখ খুলত সাহস পাছ না।

আবার কান কান ¯ুল শিপর টাকা উঠিয় নাম মাত্র হিসাব দখিয় সম্পূর্ণ খরচ কর বস আছ। এই ব্যাপার শি¶া অফিসর নই কান মণিটরিং। কারন তিনি আগই এখান থক নিয় বস আছ।

ভাউচারর সাথ খাতার হিসাবর মিল নই। কান কান ¯ুল চয়ার টবিল একটি রুম ভাঙ্গা পড় আছ অথচ মরামতর বিল দখাছ। এই ভাবই চলছ শি¶া অফিসারর সাথ মিল মিশ শিপর টাকা লুট পাঠর খলা।

এই প্রসঙ্গ সহকারী উপজলা শি¶া অফিসারর নিকট জানত চাইল তিনি বলন, আমি বিদ্যালয় বিভিন রজিস্টার দখাত নিষধ করছি। আমার বিরুদ্ধ শিপর টাকা লুটপাটর য অভিযাগ উঠছ তাহা মিথ্যা, এই প্রকতির কান কাজর সাথ আমার সম্পক্তা নই। 

ভ্রাম্যমান আদালতর অভিযান: ৫টি প্রতিষ্ঠান থক জরিমানা আদায় !


ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ
ঝিনাইদহর শলকুপায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয় ৫টি প্রতিষ্ঠান থক জরিমানা আদায় করছ। বুধবার সকাল থক দুপুর পর্যÍ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করন উপজলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট সুমী মজুমদার।

জানা গছ, ভাক্তা অধিকার লঘন আইন পর এলাকার হাবিবপুর মায়র দায়া বকারী থক ৩ হাজার, শখপাড়া রিমা হাটল থক ২ হাজার, মা হাটল এন্ড রস্টুরট থক ২ হাজার, নদী মিষ্টান ভান্ডার থক ৩ হাজার ও গাড়াগঞ্জ আব্দুস সাত্তারর জিলপির দাকান থক ১ হাজার সর্বমাট ১১ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এসময় তার সাথ উপজলা ¯^া¯্য কমপ্ল·র সনটারী ইন্সপক্টর ওয়াহিদুজ্জামান মিঞা ও শলকুপা থানার এস,আই ইকবাল কবীর সঙ্গীয় ফার্স নিয় উপ¯িত ছিলন।

ঝিনাইদহর শলকুপার পর ময়রক জড়িয় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশর প্রতিবাদ মানববন্ধন !


ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ
ঝিনাইদহর শলকুপা পর ময়র ও পর আওয়ামীলীগর সভাপতি আলহাজ্ব কাজী আশরাফুল আজমক জড়িয় পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশর প্রতিবাদ বিভিন ব্যানার মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়ছ।

বুধবার বিকল চরাস্তার মাড় শলকুপা হিদু, বদ্ধ্য ও খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ, বাজার দাকান মালিক সমিতি ও পরবাসীর ব্যানার মানববন্ধন হাজার হাজার জনতা অংশগ্রহণ করন।

এসময় সং¶িপ্ত বক্তব্য রাখন উপজলা কষকলীগর সভাপতি জাহিদুনবী কালু, উপজলা ¯^ছাসবকলীগর সাবক আহবায়ক খাইরুল ইসলাম মুকুল, জলা ¯^ছাসবকলীগর আইন বিষয়ক সহ-সম্পাদক আজাদ রহমান, পর ¯^ছাসবকলীগর সভাপতি ও কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম শফি, আওয়ামীলীগ নতা ও কাউন্সিলর নায়ব আলী, প্যানল ময়র (১) খদকার রাকিবুল ইসলাম রাকিব, কাউন্সিলর নাজিম উদ্দিন, মুকুল খান ও বকুল হাসন প্রমুখ।

বক্তারা বলন, স¤প্রতি পর ময়র কাজী আশরাফুল আজম, তার ছাট ছল রাজিব কাজী, শ্যালক রাসু কাজী ও কর্মী আব্দুর রহিমক জড়িয় পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশিত হয়ছ।

তারই প্রতিবাদ আজকর এই মানববন্ধন কর্মসূচী। ময়র ও তার পরিবারর বিরুদ্ধ য সংবাদ পরিবশন করা হয়ছ তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন ও উদ্দশ্য প্রনাদিত বল বক্তারা দাবী করন।

বক্তারা আরা বলন, রাজনতিক প্রতিপ¶রা তার উনয়নমূলক কর্মকান্ড ও জনপ্রিয়তা নষ্ট করতই এ ধরনর মিথ্যা সংবাদ পরিবশন করিয়ছ। মানববন্ধন উপ¯িত হাজার হাজার জনতার প¶ থক আমরা তার তীব্র প্রতিবাদ ও নিদা জানাছি।

মুসীগঞ্জে একটি বৈদ্যুতিক খুটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায়

গজারিয়াঃ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার রসলপুর বাজার সংলগ্ন এলাকায় একটি বৈদ্যুতিক খুটির গোড়া ভেঙ্গে খুটিটি এক দিকে আংশিক হেলে পড়েছে। জানা যায়, গত ৬ মাস পূর্বে একটি সরকারি মালবাহী ট্রাকের ধাক্কায় খুটিটি ভেঙ্গে যায়। পরে তাৎক্ষণিক বিষয়টি কতৃপক্ষকে জানানো হলে তারা এসে পরিদর্শন করে যায়। অতঃপর লিখিত আকারে এবং ফোন করে একাধিকবার তাদের অভিযোগ করা হলে তারা তা মেরামত করার আশ্বাস দেয়। যার ৬ মাস পেরিয়ে গেলেও মেরামত কাজে কোন অগ্রগতি চোখে পরে নি। এদিকে খুটিটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। গোড়ার দিকে পচঁন ধরে এবং মাটি সরে গিয়ে গর্ত হয়ে গেছে। যেকোন সময় পরে গিয়ে ঘটতে পারে প্রানহানী সহ অগ্নিকান্ডের মত দুর্ঘটনা। এমতাবস্থায় খুটিটি দ্রুত মেরামত করার জন্যে যথাযথ কতৃপক্ষের নিকট জোরালো দাবী জানাচ্ছে সংশ্লিষ্ট এলাকাবাসী ।

পাগলা কুকুরের উপদ্রব আতংকে গজারিয়াবাসী

ইমরান ভুইয়া আপনঃ মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব বেড়ে গেছে। এতে করে চরম আতংকে রয়েছে এলাকাবাসী। পথচারী, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ গবাদিপশু রাস্তায় চলাচলে মারাত্মক হুমকির সম্মুখীন হয়ে পড়েছে বেওয়ারিশ পাগলা কুকুরের উপদ্রবে। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের চরম বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে।

সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলাটির বিভিন্ন গ্রাম বিশেষ করে, রসুলপুর, মাথাভাঙ্গা, গোসাইরচর, গজারিয়া, ভবেরচর ইত্যাদি আরো বেশ কয়েকটি গ্রামে এক সাথে ৮-১০টি করে কুকুর দলবেঁধে হানা দিয়ে হাঁস, মুরগি, গরু ও ছাগলের উপর আক্রমন করছে। শুধু তাই নয় হামলাকারী কুকুর সাধারণ পথচারী বিশেষ করে শিশুদের প্রতিনিয়ত আক্রমণ করছে।

এলাকাটিতে রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, স্কুল-মাদরাসা, মসজিদ ও বাড়ির আঙ্গিনায় এসব কুকুর দলবেঁধে ঘুরতে দেখা যায়। এতে করে পথচারীরা রাস্তা-ঘাটে বের হতে ভয় পাচ্ছে, যেতে পাড়ছে না হাট-বাজারে। অভিভাবকরা তাদের ছেলে মেয়েকে বিদ্যালয়ে পাঠাতে ভয় পাচ্ছেন। শুধু তাই নয় ফজর ও এশার নামাজের সময় মসজিদে যাওয়ার পথে অনেক সময় দল বেধে পাগলা কুকুর তেরে আসে।শুধু দিনের বেলাই নয়, রাতের বেলা এদের উৎপাত যেন বেশী বেড়ে যায়। সন্ধ্যা পেরুলেই কুকুররা দল বেধে রাস্তা-ঘাটে ঘুরে বেড়ায়। নিরস্র কিংবা একা পথে কেউ চলতে দেখলে তাকে আক্রমন করতে তেরে আসে।

সম্প্রতি উপজেলাটির গোসাইরচর গ্রামে পাগলা কুকুরের কামড়ে আবুল মিয়া, নুরে আলম, কালাম ও রফিক সহ আরও অন্তত ১০ জন আহত হবার খবর জানা যায়। পরে এলাকাবাসীর সম্মিলিত অভিযানে দেশীয় লাঠি সোঠা নিয়ে বেশ কয়েকটি কুকুর নিধন করতে সক্ষম হন তারা। কিন্তু এ পদ্ধতিতে কুকুর নিধন অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ। এ অবস্থায় বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব হতে রেহাই পেতে এলাকাবাসী জরুরিভিত্তিতে বেওয়ারিশ কুকুর নিধনে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করে।

গজারিয়ায় একই ইউনিয়নে মামা ও দুই ভাগিনার হাড্ডাহাড্ডি লড়াই



ইমরান ভুইয়া আপনঃ আসন্ন ২৮ মে অনুষ্ঠিতব্য ৫ম দফা ইউনিয়ন নির্বাচনকে সামনে রেখে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ৭নং ইমামপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছে মামা ও দুই ভাগিনা। হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আসংক্ষা।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ এর দলীয় মননীত চেয়ারম্যান প্রার্থী (নৌকা প্রতীক) জনাব হাফিজুজ্জামান খান (জিতু) এর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন তারই মামা স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (আনারস প্রতীক) জনাব সাইদুর রহমান খান এবং চাচাত ভাই অপর স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী (ঘোড়া প্রতীক) মাঠে নেমেছেন বর্তমান ইউপি চেয়ারম্যান জনাব মনসুর আহমেদ খান জিন্নাহ।

তাদের মামা ও দুই ভাগিনার প্রতিদ্বন্দ্বীতায় কে হতে যাচ্ছেন বিজয়ী তা দেখার জন্যে অপেক্ষা করতে হবে আরো একটা দিন। এদিকে এই ইউনিয়নে নির্বাচনের দিন তাদের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আসংক্ষা করছেন এলাকাবাসী। অপর দিকে বিএনপি থেকে মননীত প্রার্থী (ধানের শীষ প্রতীক) জনাব সাইফুল শিকদার প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

আগামীকালকের নির্বাচনকে সামনে রেখে সকল প্রস্তুতি সম্পন্য করেছে নির্বাচন কমিশন। অনাকাংক্ষিত ঘটনা এড়াতে ও সুস্থ্যভাবে নির্বাচন সম্পন্য করতে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ, র্যা ব, বিজিবি ও সেনাবাহিনী। থাকবে ভ্রাম্যমান আদালত। ভোট গ্রহন চলবে সকাল ৮ টা থেকে।

বেনাপোল থেকে ঢাকায় চাকুরি করতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলো কিশোর তারিকুল ইসলাম

সাহাবুদ্দিন আহম্মেদ : পরিবারের সদস্যদের ক্ষুধার জ্বালা নির্বারণ করতে বেনাপোল থেকে ঢাকায় চাকুরি করতে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলো কিশোর তারিকুল ইসলাম(১৭)। সে বেনাপোল পৌর এলাকার দূর্গাপুর গ্রামের রমজান আলীর ছেলে।

এ বিষয়ে তারিকুলের পিতা রমজান আলী জানান সংসারে অভাব অনটনের জন্য তার ছেলে ৬ মাস আগে ঢাকায় যায়। সেখানে গিয়ে এফ ডিসিতে মেকাপ ম্যান হিসাবে চাকুরি নেয় আর উত্তরখান থানার অধিনস্থ্য এয়ারপোর্টের সামনে একটি ম্যাচে আবাস স্থল করেছিল। মাসে মাসে পাঠানো তার উপার্জনের টাকায় আমাদের সংসারের অভাব অনেকখানি দূর হতে শুরু হয়েছিল। হঠাৎ সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার সময় পুলিশের একটি ফোন আসে আমার আরেক ছেলে রেজার কাছে। বলা হয় উল্লেখিত ম্যাচে একটি লাশ পাওয়া গেছে আর সে লাশের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে আপনার নাম্বার পাওয়া গেছে। লাশ সনাক্তের পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টার সময় তার লাশ গ্রামের গণ কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন হয়। এ বিষয়ে উত্তরখান থানায় একটি পুলিশবাদী মামলা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

মঙ্গলবার রাতে তরিকুলের লাশ বেনাপোলে ফিরলে গ্রামে শোকের ছায়া নেমে আসে। পরিবারের দাবি তাদের ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। তারা এ হত্যাকান্ডের সঠিক তদন্তপূর্বক বিচার দাবি করেছেন।

ভালুকা এ্যাপোলো প্রধান জেলায় শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ

মোঃ দেলোয়ার হোসেন,বিশেষ প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ থেকেঃবাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধিভুক্ত ভালুকা এ্যাপোলো ইন্সটিটিউট অব কম্পিউটার (ব্যাবসায় ব্যাবস্থাপনা কলেজে’র অধ্যক্ষ এআরএম শামছুর রহমান জেলায় শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ (বাকাশিবো ক্যাটাগরিতে) হিসেবে বিবেচিত হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ঠ কলেজ সুত্রে জানা গেছে।একই সাথে এ্যাপোলো ইন্সটিটিউট সেরা কলেজ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে। জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ -২০১৬ উপলক্ষে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে প্রদত্ত ঘোষিত ফলাফলে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড অধিনস্ত প্রতিষ্ঠান প্রধানদের মধ্যে তিনি শ্রেষ্ঠ অধ্যক্ষ হিসেবে বিবেচিত হন। এ বিষয়ে উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার মোঃ সালাউদ্দিন জানান ভলুকা উপজেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান ও প্রতিষ্ঠান প্রধান হিসেবে বিবেচিত হয় এ্যাপোলো ইন্সটিটিউট ও প্রতিষ্ঠান প্রধান এআরএম শামচুর রহমান। উল্লেখ্য জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০০৩ এ শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান প্রধান ও ২০০৪ সালে শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান হিসেবেও বিবেচিত হয়েছিল এ্যাপোলো ইন্সটিটিউট অব কম্পিউটার।

মোঃ মুসলিম চৌধুরী ফাউন্ডেশন সিলেট এর ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভা


সোহেল আহমেদ সিলেট প্রতিনিধি:- মোঃ মুসলিম চৌধুরী ফাউন্ডশন সিলেট এর ১ম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে গত কাল রবিবার ফাউন্ডেশনের গোলাপবাগস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয় মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভা। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ফাউন্ডেশনের সভাপতি হাবীব হাসান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের ভাইস-চেয়ারম্যান মুহিবুল মজিদ চৌধিরী সহ ২৪ নং ওয়ার্ডের গণ্যমান্য মুরব্বীয়ান।
শুরুতে মিলাদ মাহফিল ও কেক কেটে ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করা হয়।
পরে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভার কার্যক্রম শুরু করা হয়। আলোচনা সভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন ফাউন্ডেশনের ভাইস-চেয়ারম্যান সহ এলাকার গণ্যমান্য মুরব্বিয়ানগন।
এসময় ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান লন্ডন প্রবাসী মাহবুবুল মজিদ চৌধুরী ফোন কলের মাধ্যমে সবার খুঁজ খবর নেন এবং কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে ফাউন্ডেশনের কার্যক্রমে মুরব্বীয়ান সহ এলাকার যুব-সমাজের সাহায্য সহযোগীতা কামনা করেন।
ভাইস-চেয়ারম্যান সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, শিক্ষাই আলো, ঐক্যই মুক্তি এই মন্ত্র মেনে চললে সমাজ হবে পরিচ্ছন্ন ও সুগঠিত। আরো বলেন, মাদক মুক্ত সমাজ গড়তে জনমনে  সচেতনতা সৃষ্ঠি করা এবং সমাজের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের শিক্ষার সুযোগ করে দেয়াই আমাদের মূল লক্ষ্য তাতে দেশ হবে আলোকিত।
এসময় মুরব্বীয়ান গন ফাউন্ডেশনের উত্তর উত্তর সাফল্য কামনা করেন এবং মুল্যবান পরামর্শ প্রদান করেন।
উল্লেক্ষ্য যে, গত বছরের ১৫ই মে ফাউন্ডেশনেত কার্যক্রম শুরু হয়। এই ১বছরে ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে সমাজ সেবামূলক নানা কার্যক্রম পরিচালনা করা হয় তার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য সমাজের সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের বিনা বেতনে কোচিং ক্লাস পরিচালনা, মাদক কে না বলুন এ বিষয়ে জনমনে সচেতনতা সৃষ্ঠির লক্ষে কেম্পেইন পরিচালনা করা, ২৬শে মার্চ উপলক্ষে স্বাধীনতার ইতিহাস সম্পর্কৃত সাধারন জ্ঞান ও চিত্রাংক্ষন প্রতিযোগিতার আয়োজন এবং পুরস্কার বিতরণ করা।
উক্ত প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভায় অন্যান্যদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন ফাউন্ডেশনের সহসভাপতি সালাউদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আকরাম হুসেন শাকিল , কোষাধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম রাব্বি ,সাংগঠনিক সম্পাদক ইফতেখার আহমদ হৃদয় , প্রচার সম্পাদক সাদিক আহমদ , দপ্তর সম্পাদক ইয়ামিন খাঁন, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আবির আহমেদ মিলাদ , তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আশিক মাহমুদ , উন্নয়ন সচিব আবুল কালাম আদর , সদস্য সচিব জসিম আহমদ জীবন ও সহপ্রচার সম্পাদক মিনহাজ আহমদ , এবং সকল সদস্যবৃন্দ।

সিলেটে তারাপুর চা বাগান সেবায়েতের কাছে হস্তান্তর


সোহেল আহমেদ সিলেট প্রতিনিধি:-সিলেটে রাগীব আলীর দখলে থাকা তারাপুর চা বাগানটি উদ্ধার করে তা সেবায়েতের কাছে হস্তান্তর করেছে প্রশাসন।সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী রোববার সকালে জেলা প্রশাসন তারাপুর চা বাগানের দখল বুঝিয়ে দেয় সেবায়েত পংকজ গুপ্তকে।তবে প্রথম দফায় অভিযানে কেবল চা বাগান উদ্ধার করা হলেও পরবর্তীতে চা বাগানটিতে গড়ে উঠা স্থাপনাগুলো অপসারণ করা হবে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।
রোববার সকাল ১০টা থেকে অভিযানে নামে জেলা প্রশাসন। এর আগ থেকেই চা বাগান এলাকায় নেয়া হয় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
অভিযানকালে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব), উপজেলা নির্বাহী অফিসার, র্যাব ও পুলিশের কর্মকর্তারা। অভিযানের শুরুতে রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজে থাকা জমি উদ্ধার করা হয়।দুপুরে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় চলে দখলমুক্ত করণের কাজ।
সিলেট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান জানান, সকালে বাগান দখলমুক্ত করতে অভিযানে নেমেছে প্রশাসন।পরবর্তীতে বাগানের স্থাপনা অপসারণে অভিযান চালানো হবে।আদালতের বেধে দেয়া ছয় মাস সময়সীমার মধ্যেই স্থাপনাগুলো অপসারণ করা হবে বলে জানান তিনি।
জানা যায়, প্রায় হাজার কোটি টাকার ওই দেবোত্তোর সম্পত্তি দীর্ঘদিন থেকে রাগীব আলীর দখলে ছিল। সম্প্রতি উচ্চ আদালতের এক রায়ে বলা হয়, রাগীব আলী প্রতারণার মাধ্যমে এ বাগান দখল করেছেন।
ছয় মাসের মধ্যে চা বাগানটি দখলমুক্ত করার জন্য জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দেন আদালত। উচ্চ আদালতের রায়ে চা বাগান ধ্বংস করে গড়ে উঠা রাগীব রাবেয়া চা বাগানসহ সব স্থাপনা সরিয়ে দেয়ারও নির্দেশ দেয়া হয়।
রাগীব আলীর পুত্র আব্দুল হাইয়ের দায়েরকৃত এক রিট পিটিশনের পরিপ্রেক্ষিতে আপিল বিভাগের চার বিচারক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিচারপতি নাজমুন আরা সুলতানা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গত ১৯ জানুয়ারি বহুল আলোচিত এ রিটের রায় ঘোষণা করেন।আদালতের নির্দেশনার প্রেক্ষিতেই আজ চা বাগান উদ্ধারে অভিযান চালায় প্রশাসন।

বেনাপোলে হোটেল বয় মুন্না হত্যার ঘটনায় তিন জনের নামে মামলা: আটক ২: পলাতক ১

জয়নাল আবেদীন বাবু, বেনাপোল প্রতিনিধি : বেনাপোল চেকপোষ্ট এলাকার সোনারবাংলা আবাসিক হোটেল বয় মফিজুর রহমান মুন্না(১৪) হত্যার অভিযোগে হোটেল মালিক আবু তালেবসহ তার স্ত্রী ও পুত্রকে আসামী করে ৩ জনের নামে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় তালেবের স্ত্রী নুর নাহার বুলু ও ছেলে মিলনকে আটক করেছেন পোর্ট থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাদেরকে যশোর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় মুন্নার বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন বাদি হয়ে থানায় মামলা করায় তাদেরকে আটক করা হয়। মামলা নং ২৭, তারিখ ১১-মে/১৫। জানালেন থানার অফিসার ইনচার্য অপূর্ব হাসান।

হোটেল কর্তৃপক্ষের অমানুষিক নির্যাতন আর যন্ত্রণা সইতে না পেরে তিন দিন যাবত মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার সময় দুনিয়ার মায়া ত্যাগ করে না ফেরার দেশে চলে যায় মুন্না। বাবার চোখের সামনে ছেলের করূণ মৃত্যু দেখতে হয় অসহায় গরীব বাবাকে।

অভাবের যন্ত্রনায় তিনি ছেলেকে বেনাপোল পৌর শহরের আবাসিক হোটেল সোনার বাংলায় বয় হিসাবে চাকুরি দিয়েছিলেন। কিন্তু অভাব তাকে ক্ষমা করেনি। কেড়ে নিল আদরের শিশু সন্তান মুন্নারে। পোর্ট থানার ওসি’র টেবিলের সামনে বসে এভাবে কতোকথা বলতে বলতে হাউমাউ করে কাঁদতে থাকে মুন্নার বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন। কাঁদতে থাকে তার স্বজনেরা।

স্থানীয়রা জানান, ইতোমধ্যে উক্ত বিতর্কিত হোটেলে অসামাজিক কার্যকালাপের অভিযোগে কয়েকবার হোটেল মালিককে জরিমানা এবং হোটেলটিকে সীলগালা করে দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। কিন্তু থেমে থাকেনি হোটেলের সকল অসামাজিক কার্যকলাপ। উপরি মহলকে ম্যানেজ করে স্বমূর্তিতে ফেরেন হোটেল মালিক আবু তালেব।

স্থানীয় ও মামলার অভিযোগ সুত্রে আরো জানাযায় গত কয়েক দিন আগে হোটেলে অসামাজিক কার্যকালাপের কথা জেনে যায় হোটেল মালিক আবু তালেবের পরিবার। পরিবারকে জানানোর জন্য ধৃত আবু তালেব কর্মচারী মুন্নাকে দায়ী করেন। এরই জের ধরে বুধবার রাতে তালেব মুন্নাকে হোটেলের ছাদে নিয়ে লাঠিপেটা করে স্বীকার করানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু বেধড়ক মারার পরও সে অস্বীকার করলে তাকে হোটেলের সিঁড়ি থেকে ফেলা দেওয়া হয় এবং হত্যা নিশ্চিত জেনে হোটেলের একটি কক্ষে তালা মেরে রেখে দেয় তাকে। রাতের আঁধারে লাশ গায়েবের চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ায় অপেক্ষা করতে হয় তাকে। কিন্তু সময় তা মেনে নেয়নি। রাত গড়িয়ে দিনের আবির্ভাব ঘটে। রুমের তালা খূলে দেখে মুন্নার শরীর নড়াচড়া করছে। পরে শাক দিয়ে মাছ ঢাকার চেষ্টা করেন আবু তালেব। হোটেলের কর্মচারিদের দিয়ে মুন্নাকে পাঠিয়ে দেয় নিকটস্থ্য সাদিপুর বেলতলায় তার খালু শামীম হুজুরের বাড়ি। প্রচার করা হয় মুন্না নেশা করে হোটেলের ছাদ থেকে পড়ে গেছে। অবশেষে মুন্নার পরিবারের পক্ষ থেকে স্থানীয় রাজ্জাক ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা দেওয়া হলে ডাক্তার অবস্থার বেগতিক দেখে শার্শা উপজেলা সাস্থ্য কেন্দ্র ভর্তির পরামর্শ দেয়। সেখানেও অবনতি দেখা দিলে যশোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবশেষে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার সময় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিহতের চাচা মোস্তফা বলেন, মুন্নার বাবা আরেকটি বিয়ে করায় তার বাবা মায়ের সাথে ডিভোর্সের ঘটনা ঘটেছিল। সংসারে অভাবের টানে ছেলেটি ৩বছর যাবত হোটেলটিতে কাজ করত এবং হোটেল মালিক আবু তালেবের বাসায় থাকত। সামান্য একটি বিষয় নিয়ে এভাবে ছেলেটিকে পিটিয়ে হত্যা করবে তা আমরা ভাবতেও পারিনি। তিনি এ হত্যাকান্ডের  সঠিক বিচার দাবি করেন।

এ ঘটনায় হোটেল মালিক তালেবের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন মুন্নার শরীরে জ্বর আসছিল এবং সে বমি করে দূবল হয়ে যাওয়ায় সিড়ি থেকে পড়ে গিয়েছিল। আমি ছেলেটিকে চিকিৎসা দেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম। আমার কাছে রেকর্ড আছে।

এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্য(ওসি) অপূর্ব হাসান বলেন অভিযুক্ত আসামী আবু তালেবকে আটক করার চেষ্টা অব্যাহত আছে। এছাড়া আটককৃত তালেবের স্ত্রী ও ছেলেকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে ঘটনার মূল বিষয় বস্তু বেরিয়ে আসবে বলে তিনি মনে করেন।

উল্লেখ্য, খুবই বেদনা বিধূর পরিবেশে বৃহস্পতিবার বিকালে বেনাপোলের কাগমারি গ্রামে মুন্নার দাফন সম্পন্ন হয়েছে বলে জানালেন মুন্নার পরিবারের সদস্যরা।

বেনাপোলে হোটেল বয় খুন

জয়নাল আবেদীন বাবু, বেনাপোল প্রতিনিধি : বেনাপোল পোর্ট থানার চেকপোষ্ট এলাকার সোনার বাংলা আবাসিক হোটেলের বয় মুন্না (১৪)’র রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠেছে।

বুধবার সন্ধ্যার সময় সে যশোর জেনারেল হাসপাতালে মৃত্যু বরন করায় প্রাথমিক পর্যায়ে হোটেল কর্তৃপক্ষের দিকে এ হত্যাকান্ডের অভিযোগ উঠেছে।

হোটেল বয় মফিজুর রহমান মুন্না শার্শা থানার বহিলাপোতা গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে।

মুন্নার চাচা মোস্তফা জানান, প্রায় ৩ বছর ধরে সে হোটেল সোনার বাংলায় বয় হিসাবে চাকরি করত। গত শনিবার রাতে তাকে কে বা কারা ঘাড়ে পিঠে আঘাত করার পর তাকে তার আত্মীয়ের বাসায় রেখে আসেন হোটেল মালিক আবু তালেব। এখানে প্রাথমিক চিকিৎসার অবনতি ঘটলে প্রথমে নাভারন বুরুজবাগান হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনেরা। পরে অবস্থার আরো অবনতি হলে যশোর সদর হাসপাতালে ভর্তি করার পর বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার সময় তার মৃত্যু হয়। তিনি আরো জানান, হোটেল মালিক আবু তালেব বলেছেন সে হোটেলের সিড়ি থেকে অসাবধানতা বশত পড়ে গিয়ে মারাত্বক আহত হয়ে পড়ার পর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়।

এ বিষয়ে বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার্স ইনচার্জ অপুর্ব হাসান বলেন, মুন্নার অভিভাবকদের সাথে কথা হয়েছে। মামলার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সর্বশেষ...সংবাদ

আমাদের আপডেট পেতে লাইক দিন

Bangla Newspaper

Mobile Dialer

জনপ্রিয় সংবাদ

Popular Posts